Tag: আইএস

ফিলিস্তিনি ভূখণ্ড দখল করা থেকেই সংঘাতের সূত্রপাত

সূত্রঃফিলিস্তিনি ভূখণ্ড দখল করে ইহুদিদের দেয়া থেকেই সংঘাতের সূত্রপাত। মধ্যপ্রাচ্য বিশেষ করে সিরিয়ায় বর্তমান সংকট ও যুদ্ধপরিস্থিতি নিয়ে এ মন্তব্য করেছেন মালয়েশিয়ার সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও বর্ষীয়ান রাজনীতিক মাহাথির বিন মোহাম্মদ। তিনি বলেছেন, সিরিয়ায় আইএসের বিরুদ্ধে পশ্চিমাদের বিমান হামলা জোরদারের সিদ্ধান্ত সংকটকে আরও ঘনীভূত করবে। সংকট সমাধানের জন্য খুঁজে বের করতে হবে তারা কেন ভয়াবহ কর্মকাণ্ড চালাচ্ছে। বোমা হামলায় শুধু আইএস নয়, নিরপরাধ মানুষও আক্রান্ত হবে। ধ্বংস হয়ে যাবে পুরো দেশ। আল-জাজিরাকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে এসব কথা বলেছেন মাহাথির। এখানে পুরো সাক্ষাৎকারটি তুলে ধরা হলো:
প্রশ্ন: গত মাসের প্যারিস নৃশংসতার পর পশ্চিমা দেশগুলো আইসিলের বিরুদ্ধে বিমান হামলা জোরদার করছে। এ সিদ্ধান্ত নিয়ে আপনি কী মনে করেন?
মাহাথির: এটা পরিস্থিতিকে আরও খারাপ করবে। কেননা নিরপরাধ আরবরা মারা যাবে। তাদের যেহেতু কোনো কিছু করার ক্ষমতা নেই, তাই তারা আইসিলের প্রতি সহানুভূতিশীল। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে আইসিল ভয়াবহ আরও কিছু নিয়ে হাজির হবে। অথবা অন্যান্য নানা গ্রুপ হয়তো তৈরি হবে। নিজেদের শত্রুদের হারাতে ব্যর্থ হওয়ার কারণে মরিয়া হয়ে তারা যা পারে তাই করবে। আর তারা যেটা করতে পারে সেগুলো আমরা সন্ত্রাসবাদ বলে ব্যাখ্যা করি। কিন্তু আমার কাছে আকাশ থেকে বোমা ফেলাও সন্ত্রাসবাদ। যারা বোমা পড়ার জন্য নিচে অপেক্ষা করছে, তারাও সন্ত্রস্ত।
প্রশ্ন: আপনি কী আরও ব্যাপক আকারের একটি যুদ্ধ নিয়ে উদ্বেগ পোষণ করেন?
মাহাথির: এটা ইতিমধ্যে ছড়িয়ে পড়ছে। আমি সব সময় বলি, ইসরাইলের জন্য যখন ফিলিস্তিনের ভূখণ্ড দখল করে ইহুদিদের দেয়া হয়েছিল, তখন থেকেই এসব কিছুর সূত্রপাত। এরপর ইহুদিরা বলতে গেলে পুরো ফিলিস্তিন দখল করে নিয়েছে। বসতি নির্মাণ করেছে। রাস্তাঘাট বানিয়েছে। মানুষের চলাফেরা নিয়ন্ত্রণ করছে। আরও অনেক কিছু। আরব দেশগুলো ওই ভূখণ্ড পুনরুদ্ধারের চেষ্টা করেছিল। কিন্তু তারা ব্যর্থ হয়, কেন না ইউরোপ ও আমেরিকা ইসরাইলকে সমর্থন করেছে। আর এরপর থেকে ইসরাইল সব ধরনের আন্তর্জাতিক অপরাধ করে যাচ্ছে। এটা অত্যন্ত অন্যায়।
ইউরোপীয় ও আমেরিকানদের যেটা করা উচিত তা হলো, নিরপেক্ষ হওয়া আর উভয় পক্ষের কথা শোনা। আমরা এটা বলতে পারি না যে একপক্ষ সব সময় ভুল। ইসরাইলিরা অবৈধভাবে অবরোধ আরোপ করেছে। সমুদ্রে জাহাজগুলো আটকে দিয়েছে। এসবকিছুর দিকে ভ্রূক্ষেপ করে না পশ্চিমা বিশ্ব। তারা শুধু সন্ত্রাসবাদ নিয়ে কথা বলে।
ইসরাইলের জবাব হলো, সন্ত্রাসীদের আরও ত্রাস সৃষ্টি করা। এটা তাদের পরিস্থিতি মোকাবিলা করার পদ্ধতি। আপনি একজন ইসরাইলি হত্যা করলে, আমরা আপনাদের ১০ জনকে হত্যা করবো। আপনি আমাদের ১০ জনকে হত্যা করলে আমরা আপনার ১০০ জনকে হত্যা করবো। আমরা আপনাদের শাস্তি দেবো। এটাই ইসরাইল করছে। পুরো বিশ্ব এটা জানে। আর বিশ্ব এটা সহ্য করে।
প্রশ্ন: কিন্তু নিশ্চিতভাবে আইসিলের উত্থান ইসরাইলের সৃষ্টির থেকেও আরও বেশি কিছু?
মাহাথির: হ্যাঁ বেশি কিছু। তবে এটা আরও খারাপ হতে যাচ্ছে। আমি মনে করি, প্রথাগত যুদ্ধ দিয়ে গেরিলা যুদ্ধ লড়াই করা যায় না। আকাশ থেকে লড়াই করা যায় না। মালয়েশিয়াতে আমাদের অভিজ্ঞতা আছে। আমাদের যখন গেরিলা ছিল, আমরা মানুষের হৃদয়, মন জয়ের চেষ্টা করেছিলাম তারা যেন গেরিলাদের সমর্থন না দেয়। এভাবে আমরা সফল হয়েছিলাম। আমরা আরবদের সমস্যার সমাধান করছি না এটা হলো, কোনো কিছু না করতে পারার ক্রোধ আর হতাশা।
প্রশ্ন: পশ্চিমা রাজনীতিবিদরা কী অতীতের ভুলের পুনরাবৃত্তি করছে?
মাহাথির: হ্যাঁ। আপনি এখানে আইসিলকে হত্যা করলে, অন্য কোথাও আইসিলের উত্থান হবে। আপনি যুদ্ধের বিস্তার করবেন। এমনকি মালয়েশিয়াতেও আইসিলের প্রতি সহানুভূতিশীল মানুষ আছে। এমন কট্টরপন্থিরা থাকবে যারা এতটা ক্রুদ্ধ যে তারা এসব কিছু করবে। এটা আমাদের সংস্কৃতিতে নেই। আর মালয়েশিয়ানদের সপরিবারে অনৈসলামিক এমন কিছুতে যোগ দিতে যেতে দেখে আমরা স্তম্ভিত। এটা ইসলামের শিক্ষাবিরোধী।
প্রশ্ন: অপেক্ষাকৃত ভালো নীতি কোনটা হবে?
মাহাথির: আপনি আমার মানুষকে হত্যা করলে আমি আপনার মানুষকে হত্যা করবো- প্রতিহিংসার এ নীতি কাজে আসবে না। খুঁজে বের করুন কেন এসব মানুষ এ ধরনের ভয়ঙ্কর কর্মকাণ্ড চালাচ্ছে। ত্রাস সৃষ্টির নতুন নতুন উপায় আবিষ্কার করা হচ্ছে, শেখা হচ্ছে। এখন তারা টেলিভিশন ক্যামেরার সামনে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড চালানোর পদ্ধতি খুঁজে বের করেছে। এটা তাদের নতুন অস্ত্র। এখন পুরো বিশ্ব আতঙ্কিত। মুসলিম দেশগুলো আতঙ্কগ্রস্ত। তারা শুধু সেনাদের খুন করে না, তারা যে কাউকে খুন করে; পুরো বিশ্বের সামনে নিরপরাধ মানুষ হত্যা করে।
প্রশ্ন: আর, ঘনীভূত হওয়া এ দ্বন্দ্বের মানবিক পরিণতি কী?
মাহাথির: আমি মনে করি সাহায্য করাটা প্রত্যেকের দায়িত্ব। আমরা যদি অনেক দেশের মধ্যে এসব শরণার্থীকে ভাগ করে দেই তাহলে তা কোনো এক দেশের জন্য অনেক বড় একটি বোঝা হয়ে দাঁড়াবে না। ৪০ লক্ষাধিক মানুষ পালিয়ে গেছে, যা কিনা সিরিয়ার জনসংখ্যার প্রায় অর্ধেক। প্রতিটি দেশকে সাহায্যের হাত বাড়ানো প্রয়োজন। এসব মানুষ এ দেশগুলোতে সারাজীবন থাকবে না। তারা নিজেদের দেশে ফিরতে চায়।
সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো সিরিয়ার গৃহযুদ্ধের সমাধান করা। শুধু আকাশ থেকে বোমা ফেললে কিছু হবে না। সমস্যা ভূখণ্ডে, আকাশে নয়। এ প্রক্রিয়ায় আপনি শুধু আইসিলকে নয়, নিরপরাধ মানুষকে আঘাত করবেন। ধ্বংস করবেন পুরো দেশকে।

‘ব্যভিচারের রাজধানীতে হামলা ক্রুসেডের প্রতিশোধ’

সূত্র: প্যারিসে হামলার দায় স্বীকার করে আইএসের নামে একটি বিবৃতিতে বলা হয়েছে, তাদের ‘খেলাফতের’ বিরুদ্ধে ফ্রান্সের আক্রমণের প্রতিশোধ নিতে এই হামলা চালানো হয়েছে। শিল্প-সংস্কৃতির শহর প্যারিসকে ‘ব্যভিচার ও পাপাচারের’ রাজধানী বলা হয়েছে মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক এই জঙ্গি গোষ্ঠীর ওই বিবৃতিতে।

IS

ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসের কয়েকটি জায়গায় শুক্রবার সন্ধ্যায় একযোগে হামলা চালায় সন্ত্রাসীরা। গুলি করে এবং আত্মঘাতী বোমার বিস্ফোরণ ঘটিয়ে শতাধিক মানুষকে হত্যা করা হয়। হামলায় অংশ নেওয়া আটজনের সবাই নিহত হয়েছে বলে ফরাসি কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে।
বিস্তারিত →

রুশ বিমান বিধ্বংসের দায় স্বীকার আইএসের

সূত্র: রোকন রাইয়ান : শনিববার মিশরের সিনাইয়ে ২২৪ যাত্রীবাহী রুশ বিমান বিধ্বস্ত করার দায় স্বীকার করেছে আইএস। সিরিয়া ও ইরাকের জঙ্গি সংগঠনটি তাদের একটি ওয়েব সাইটে এ খবর জানিয়েছে।

IS+1
বিমানটি বিধ্বস্তের ঘটনায় ভেতরে থাকা ২২৪ আরোহীর সবাই নিহত হয়েছে বলে সর্বশেষ খবরে জানা গেছে। রাশিয়ার পুলিশ এর সত্যতা স্বীকার করেছেন।

বিস্তারিত →

সিরিয়ায় যুদ্ধে রাশিয়া পরাজিত হবে : আইএস

সূত্র: রোকন রাইয়ান : সিরিয়ায় চলমান যুদ্ধে রাশিয়া পরাজিত হবে বলে ঘোষণা দিয়েছে ইসলামিক স্টেট (আইএস)। মঙ্গলবার অনলাইনে তারা একটি অডিও বার্তার মাধ্যমে এ ঘোষণা দেয়। রাশিয়াকে পরাজিত করতে তারা নতুন করে জিহাদেরও ডাক দেয় ওই অডিও বার্তায়।

is
সিরিয়ায় কয়েক দিনের যুদ্ধে রাশিয়ার অবস্থান এখনো যুক্তরাষ্ট্রের কাছে গ্রহণযোগ্য নয়। এছাড়া জঙ্গিগোষ্ঠী আইএস দমনে যুক্তরাষ্ট্রের সহায়তাও পাননি রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিন। বরং যুক্তরাষ্ট্র রাশিয়ার নীতিতে কঠোর সমালোচনা করে আসছে শুরু থেকেই। এমন সময়ে আইএসের হুঙ্কার রাশিয়ার জন্য অন্য বার্তা নিয়ে আসতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।

বিস্তারিত →

বিশ্বের ৩০ হাজার জঙ্গি ভিড়েছে আইএসে!

সূত্র:ওয়াশিংটন:  মগজ ধোলাই হওয়া প্রায় ৩০ হাজার বিদেশি জঙ্গি অধিকৃত সিরিয়া এবং ইরাকে গিয়েছে। গত চার বছরে এই বিপুল পরিমাণ শক্তি আইএসআইএস (ইসলামিক স্টেট অব ইরাক অ্যান্ড সিরিয়া) সন্ত্রাসবাদী জঙ্গি সংগঠনে যোগ দিয়েছে।

 

যাদের মধ্যে রয়েছে ২৫০ জন মার্কিন তরুণ। নিউ ইয়র্ক টাইমস তাদের প্রতিবেদনে এমনই রিপোর্ট প্রকাশ করেছে।সংবাদপত্র মার্কিন গোয়েন্দাবাহিনীর তথ্য বিশ্লেষণ করে জানিয়েছে, ২০১১ সাল থেকে ১০০-এরও বেশি দেশের মগজ ধোলাই হওয়া তরুণ সম্প্রদায়ের প্রায় ৩০ হাজার প্রতিনিধি অধিকৃত ইরাক ও সিরিয়ায় পাড়ি দিয়েছে।

বিস্তারিত →

সিরিয়ার সর্বশেষ তেলক্ষেত্র দখলে নিল আইএস

সূত্র: রাশেদ শাওন : সিরিয়ার সর্বশেষ সরকারী তেলক্ষেত্রটি দখলে নিয়েছে ইসলামিক স্টেটের (আইএস) জঙ্গিরা। দেশটির সরকারী বাহিনীর সাথে রক্তক্ষয়ী এক সংঘর্ষের পর তেল ক্ষেত্রটি দখলে নেয় তারা।

oil
যুক্তরাজ্যভিত্তিক একটি মানবাধিকার সংস্থা দখলের দিন তারিখ উল্লেখ না করে জানিয়েছে, জাজাল তেলক্ষেত্রটি তখন বন্ধ ছিল। সংঘর্ষের এক পর্যায়ে এটি দখলে নেয় আইএস।

বিস্তারিত →

নিজস্ব মুদ্রা চালু করছে আইএস

সূত্র:মার্কিন পুঁজিবাদের বিরোধিতা করতে এ বার ইরাক ও সিরিয়ার জঙ্গি অধিকৃত এলাকায় প্রাচীন ধর্মীয় মুদ্রা দিনারের অনুকরণে ধাতব চালু করল ইসলামিক স্টেট (আইএস)।
IS+1
সম্প্রতি ইন্টারনেটে পশ্চিম আইএস ‘দ্য রাইজ অব খলিফা অ্যান্ড দ্য রিটার্ন অব গোল্ড দিনার’ (খলিফার উত্থান এবং স্বর্ণ দিনারের পুনঃপ্রতিষ্ঠা) শীর্ষক একটি ভিডিও প্রকাশ করেছে। সেখানেই জঙ্গিদের ধর্ম-রাজ্যে এই নতুন মুদ্রার চালু করার কথা জানানো হয়েছে। ওই ভিডিওটিতে স্বর্ণ দিনারের ছবিও দেখানো হয়েছে। ভিডিওটি ইতিমধ্যেই ইন্টারনেটের মাধ্যমে নানা ওয়েবসাইটে ছড়িয়ে পড়েছে। বিস্তারিত →

সিরিয়ায় প্রত্নতত্ত্ববিদকে হত্যা করল আইএস

সূত্র:সিরিয়ার ঐতিহ্যবাহী নগর পালমিরার এক প্রত্নতত্ত্ববিদকে হত্যা করেছে জঙ্গি গোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট (আইএস)।পালমিরাকে মধ্যপ্রাচ্যের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ঐতিহাসিক স্থান হিসেবে বিবেচনা করা হয়। গত মে মাসে আইএসের জঙ্গিরা সিরিয়া সরকারের কাছ থেকে পালমিরা দখল করে নেয়। সরকারি বাহিনীর হামলা সত্ত্বেও পালমিরা এখনো আইএসের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।

isis

পালমিরার প্রাচীন নিদর্শন জাতিসংঘের সংস্থা ইউনেসকো-ঘোষিত বিশ্ব ঐতিহ্যের অংশ।পালমিরার দখল নেওয়ার পর প্রত্নতত্ত্ববিদ খালেদ আসাদকে জিম্মি করে আইএস।

বিস্তারিত →

আইএস-এর হিটলিস্টে ১,৪০০ মার্কিন

সূত্র: নিউ ইয়র্ক: আইএসআইএস-এর হিটলিস্টে নাম উঠল ১,৪০০ মার্কিন অধিবাসীর। আইএসের এক দল অনলাইনে এই তালিকা প্রকাশ করেছে। চলতি সপ্তাহেই এই তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে। তালিকায় রয়েছে নাম, ফোন নম্বর এমনকী পাসওয়ার্ডও।

 

যাদের নাম রয়েছে তাদের মধ্যেই বেশির ভাগই প্রশাসন বা সেনা কর্মকর্তা।আইএস হ্যাকাররা এই কাজ করেছে বলে অনুমান করা হচ্ছে। রয়েছে ওই ব্যক্তিদের ক্রেডিট কার্ডের পাসওয়ার্ড ও ফেসবুক চ্যাটের খানিকটা অংশ।

বিস্তারিত →

মেয়েদের যেভাবে দলে টানে আইএস

সূত্র: জার্মানি থেকে আইএস-এ যোগ দিতে সিরিয়া এবং ইরাকে যাচ্ছে মেয়েরা৷ দেখা গেছে, এ পর্যন্ত যারা গেছেন তাদের মধ্যে অনেকের বয়সই ২৫ বা তার কম৷ তাদের অভিনব পন্থায় আকৃষ্ট করছে আইএস সমর্থকরা৷

পরিসংখ্যান বলছে, এ পর্যন্ত জার্মানি থেকে মোট সাড়ে ছয়’শ পুরুষ ইসলামিক স্টেট বা আাইএস-এ যোগ দিতে সিরিয়া বা ইরাকে গিয়েছেন৷ ইসলামি জঙ্গি সংগঠনটির টানে মেয়ে অবশ্য সেই তুলনায় অনেক কম গিয়েছেন৷

বিস্তারিত →