আইএস’র বিরুদ্ধে হামলার নির্দেশ ওবামার

সুত্র: জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট (আইএস) এর ওপর বিমান হামলার নির্দেশ দিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা। হামলার পরিসর বাড়িয়ে প্রথমবারের মতো সিরিয়ায় গোষ্ঠীটির অবস্থানের ওপর এ ধরনের হামলার নির্দেশ দিলেন তিনি।

obama
বুধবার হোয়াইট হাউস থেকে জাতির উদ্দেশে দেয়া এক ভাষণে আইএস’র বিরুদ্ধে নেয়া কৌশল তুলে ধরেন তিনি। পাশাপাশি ইরাকে গোষ্ঠীটির অবস্থানের ওপর হামলা জোরদার করার নির্দেশ দেন।

ভাষণে তিনি বলেন, “আমেরিকার জন্য হুমকি সৃষ্টিকারী কোনো গোষ্ঠী কোনো নিরাপদ স্বর্গ খুঁজে পাবে না।”

একবছর আগে নিজ দেশবাসীর ওপর রাসায়নিক অস্ত্র হামলা চালানোর দায়ে সিরিয়া সরকারের বিরুদ্ধে বিমান হামলার হুমকি দিয়ে পরে তা বাস্তবায়ন করা থেকে সরে আসেন ওবামা।

ছয়মাস আগে আইএস’কে নগণ্য খেলোয়াড় বলে মন্তব্য করেছিলেন তিনি। মাত্র দুই সপ্তাহ আগে সিরিয়ায় জঙ্গিগোষ্ঠীটির অবস্থানের বিষয়ে “এখনো আমাদের কোনো কৌশল ঠিক হয়নি” মন্তব্য করে সমালোচিত হয়েছিলেন তিনি।

অবশেষে সিরিয়ার গোষ্ঠীটির অবস্থানের ওপর হামলা চালানোর নির্দেশ দিয়ে আইএস’কে ‘নিমূর্লের’ বিষয়টিকে যুক্তরাষ্ট্র গুরুত্ব দিয়ে দেখতে শুরু করেছে বলে মনে করছেন পশ্চিমা বিশ্লেষকরা।

ব্যাপকভাবে প্রত্যাশিত ওই ভাষণে আইএস’র পুরনো নাম ব্যবহার করে ওবামা বলেন, “আমাদের উদ্দেশ্য পরিষ্কার: ব্যাপকভিত্তিক এবং দীর্ঘমেয়াদী সন্ত্রাস-বিরোধী কৌশলের মাধ্যমে আমরা আইএসআইএল’কে দুর্বল করে পরিশেষে ধ্বংস করবো।”

তিনি জানিয়েছেন, ইসলামিক স্টেট জঙ্গিরা “যেখানেই থাকুন না কেন” তিনি তাদের খুঁজে বের করবেন।

“এর অর্থ আমি ইরাকের মতো সিরিয়ায়ও আইএসআইএল’র বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে দ্বিধা করবো না। এটি আমার শাসনের মূল দর্শন: তুমি যদি আমেরিকাকে হুমকি দাও, তুমি কোনো নিরাপদ স্বর্গ খুঁজে পাবে না,” বলেন তিনি।

ভাষণে তিনি জানিয়েছেন, ইরাকের শুধু কয়েকটি বিচ্ছিন্ন এলাকায় আইএস’র বিরুদ্ধে বিমান হামলা না চালিয়ে হামলার লক্ষ্যস্থল আরো বাড়াবেন তিনি।

এছাড়া আইএস’র বিরুদ্ধে লড়াইরত ইরাকি বাহিনীকে সাহায্য করতে দেশটিতে আরো ৪৭৫ জন সামরিক উপদেষ্টা পাঠানোর ঘোষণা দিয়েছেন তিনি।

ইতোমধ্যেই ইরাকে অবস্থান করা যুক্তরাষ্ট্রের এক হাজার সামরিক উপদেষ্টার সঙ্গে যোগ দেবেন এই নতুন উপদেষ্টারা। তবে তারা কেউ সরাসরি লড়াইয়ে অংশ নেবেন না।

Share and Enjoy:
  • Print
  • Digg
  • del.icio.us
  • Facebook
  • Yahoo! Buzz
  • Twitter
  • Google Buzz
  • LinkedIn

মন্তব্য করুন